দেশে আসলে প্রবাসীরা ন’বাবজাদা হয়ে যান !

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, যে সমস্ত দেশে ক’রোনা ভা’ইরাস অ’স্বাভাবিক মাত্রায় ছ’ড়িয়েছে, সেই সমস্ত দেশ থেকে আসা ব’ন্ধ না করলেও যিনি আসবেন তাকে কো’য়ারেন্টিনে যেতে হবে। কিন্তু আমাদের বাঙালি প্রবাসীরা যখন আসেন,

তারা এটাতে খুব অ’সন্তুষ্ট হন। তারা দেশে আসলে সবাই ন’বাবজাদা হয়ে যান। ফাইভ স্টার হোটেল না হলে অ’পছন্দ করেন।আজ রবিবার রাজধানীতে বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যা’টেজিক স্টাডিজে (বিআইআইএসএস) ‘বঙ্গবন্ধুর অ’সমাপ্ত আ’ত্মজীবনী একটি পর্যালোচনা’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান শেষে তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, গতকাল যারা দেশে এসেছেন, ন্যাচারালি তারা কোয়ারেন্টিনে যেতে চান না। দেশে আসছেন সুতরাং সাথে সাথে বাড়িতে যাবেন, এই আগ্রহ থেকে আসছেন। তারপরে আমরা যেখানে রাখব, আগেও ৩১২ জনকে ওখানে রেখেছিলাম।

তিনি বলেন, তারা এসে সেখানে পছন্দ করেন নাই। বাংলাদেশে ফ্ল্যাট বা’থরুম হয়, তারা ক’মোড বা’থরুম ইউজ করেন। সুতরাং তাদের অ’সুবিধা হয়েছে। আমরা পর্যটন করপোরেশন থেকে খাবার দিয়েছি, তারা মনে করেন,

সোনারগাঁও ফাইভ স্টার থেকে খাবার দেওয়া উচিত। আমরা সেটা দিতে পারিনি। সেজন্য তারা অ’সন্তুষ্ট হয়েছেন। তাদের বিভিন্ন রকম অ’ভিযোগ ছিল। আর তারা মনে করেন এগুলো খুব নোং’রা।

তিনি আরো বলেন, আমাদের ষোল কোটি লোক কয়েকটি ছেলে-পেলের জন্য আ’ক্রান্ত হোক, আমরা এটা চাই না। কারণ আমাদের বিভিন্ন ধরনের দু’র্বলতা আছে। সমাজের দু’র্বলতা আছে। সেজন্য আমরা ঠিক করেছি যে, ওদেরকে দূরে রাখার জন্য।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জ’বাবে তিনি বলেন, স্কুলে বরং থাকলে কীভাবে হাত ধুতে হয়, পরিষ্কার কীভাবে থাকতে হয়, ক’রোনা ভা’ইরাসের যে বিভিন্ন রীতি-নীতি শিখবে। বাড়িতে গেলে ঘুমাবে। সেজন্য আমরা খোলা রেখেছি।

যখন প্রয়োজন হবে, সরকার এ ব্যা’পারে অ’ত্যন্ত সংবেদনশীল, অত্যন্ত যত্নশীল, যদি প্রয়োজন হয় তাহলে স্কুল ব’ন্ধ হবে বলেও জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *