হাসপাতালেই মৃ’ত ক’রো’না রো’গীর দেহ খুবলে খেল কুকুর !

হাসপাতালের গাফিলতিতে করোনা রোগীর মৃ’তদেহ খুবলে খেল কুকুরের দল। এমন মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের ওঙ্গোলের সরকারি হাসপাতালে। রো’গীর আত্মীয়রা গাফিলতির অ’ভিযোগ করেছেন।কী করে হাসপাতাল চত্বরে খোলা জায়গায় ক’রোনা আ’ক্রান্ত রো’গীর মৃ’তদেহ ফেলে রাখতে পারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ- তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। মৃত ব্যক্তির নাম কান্তা রাও।

তিনি থাকতেন প্রকাশম জেলার বিত্রগুন্তা গ্রামে।ভারতীয় গণমাধ্যম প্রতিদিনের প্রতিবেদনে জানা যায়, ঘটনা গত সোমবারের। কিন্তু বুধবার থেকে তা নিয়ে হইচই শুরু হয়। হাসপাতালের একটি শেডের নিচে সেই কান্তার দেহ পড়ে থাকতে দেখেন এক নিরাপত্তাকর্মী। তিনি প্রথম দেখেন যে কান্তার দেহ খুবলে খাচ্ছে কুকুরের দল। তিনি কুকুরের দলটিকে তাড়িয়ে দেন।

কিন্তু ততক্ষণে সেই মৃত ব্যক্তির মুখের একাধিক জায়গা থেকে মাংস খুবলে নিয়েছে কুকুরগুলি।হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে খবর দেন সেই নি’রাপত্তারক্ষী। পরে জানা যায়, কান্তা করোনায় আক্রান্ত হয়ে মা’রা গিয়েছিলেন। মারা যাবার পর তার মৃ’তদেহ ওই শেডের নিচে এনে রেখে দিয়েছিল কেউ বা কারা।ঘ’টনার ত’দন্তের নির্দেশ দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

আর ত’দন্তে নেমে ত’দন্তকারীরা জানতে পেরেছেন যে কান্তা রাওকে ভর্তিই নেয়নি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।জানা গিয়েছে, ৫ আগস্ট তাকে হাসপাতালে ভর্তির জন্য আনা হয়েছিল। কিন্তু ভর্তি করা হয়নি। কান্তা রাও মা’রা যান ১০ আগস্ট। তা হলে কি পাঁচ দিন তিনি ওই শেডের নিচেই পড়ে ছিলেন! বিনা চিকিৎসাতেই কি তবে তার মৃ’ত্যু হল?একের পর এক প্রশ্ন উঠছে।

তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দায় এড়াতে চাইছে। তাদের দা’বি, রো’গীকে ভর্তিই নেওয়া হয়নি। তা হলে তিনি কী করে হাসপাতাল চত্বরে মা’রা গেলেন তা জানার দায় তাদের নয়।অন্ধ্রপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ও বিরোধী দলনেতা চন্দ্রবাবু নাইডু ঘটনার একটি ভি’ডিও শেয়ার করেছেন। তিনি বলেছেন, মৃ’ত্যুর পরও একজন মানুষ সম্মান পেলেন না। এর থেকে হৃদয়বিদারক আর কী হতে পারে!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *